হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য

হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য কী? হাসপাতাল বনাম ক্লিনিক

হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য : হাসপাতাল ও ক্লিনিক আমাদের খুবই পরিচিত দুটি শব্দ। হাসপাতাল এবং ক্লিনিক আমাদের বেঁচে থাকার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সবাই কমবেশি হাসপাতাল অথবা ক্লিনিকের সেবা নিয়ে থাকি।হাসপাতাল এবং ক্লিনিকের মধ্যে অনেক মিল আছে। তারপরও হাসপাতাল এবং ক্লিনিক এক জিনিস নয়। এদের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। তাই আমাদের আজকের আলোচনায় থাকছে হাসপাতাল বনাম ক্লিনিক।

হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য

হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য, হাসপাতাল বনাম পার্থক্য

হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর মধ্যে পার্থক্য

  • হাসপাতাল সাধারণত অনেক জায়গা নিয়ে হয়ে থাকে এবং এতে অনেক বিল্ডিং থাকে। আর ক্লিনিক সব সময় একটি বিল্ডিং এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে।
  • হাসপাতাল এবং ক্লিনিকের মাঝে সবচেয়ে বড় পার্থক্য হলো হাসপাতালে অনেক সিরিয়াস রোগী দেখা হয়। যারা হাঁটাচলা করতে পারে না এসব রোগী হাসপাতলে ভর্তি হয়। যেমন: দুর্ঘটনা ঘটলে বা বড় কোনো অপারেশন করতে হলে। আর যারা হাঁটাচলা করতে পারে তারা ক্লিনিকে স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে থাকে। যেমন: আপনার জ্বর উঠলে আপনি ক্লিনিকে যেতে পারেন।
  • হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া অনেক সময় সাপেক্ষ। এখানের রোগীদের কে ভর্তি থাকতে হয়। আর ক্লিনিকের চিকিৎসা সেবা কম সময়ের জন্য হয়ে থাকে। সাধারণত ২ ঘণ্টা বা তারও কম সময়।
  • হাসপাতালে সাধারণত পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য অনেক বেশি এবং ভালো মানের যন্ত্রপাতি থাকে। ক্লিনিকে সাধারণত এত বেশি পরিমাণ যন্ত্রপাতি থাকে না।
  • হাসপাতালে অনেক ডাক্তার, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকে সেই তুলনায় ক্লিনিকে ডাক্তার কিংবা নার্সের সংখ্যা অনেক কম।
  • হাসপাতালের রোগীদের জন্য বিছানা, অক্সিজেন পোর্ট, ওয়াশরুম, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, স্টোর রুম, ডাক্তারদের জন্য রুম ইত্যাদি থাকে। অনেক সময় রোগীর সাথে থাকা লোকজনের জন্য রান্নার ব্যবস্থাও থাকে। ক্লিনিকে সাধারণত ডাক্তারদের জন্য রুম, ওয়েটিং রুম, ওয়াশ রুম ইত্যাদি থাকে। রোগীরা ক্লিনিকে আসে ডাক্তারের কাছে পরামর্শ নেয়ার জন্য।
  • হাসপাতাল সব সময় দিন রাত ২৪ ঘন্টা খোলা থাকে এবং এখানে এমারজেন্সি বিভাগ রয়েছে। তবে আপনি হাসপাতালে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এসে আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন। কিন্তু এ সেবাটি সব সময়ের জন্য নয়। অপরদিকে ক্লিনিক সাধারণত সকালে খোলা হয় এবং মধ্যরাত পর্যন্ত চালু থাকার পর বন্ধ হয়ে যায়। ক্লিনিকে ইমারজেন্সি বিভাগ থাকেনা। এখানে যদি কোন ইমারজেন্সি রোগী আসে তাহলে সেই রোগীকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়।
  • হাসপাতাল ব্যক্তিগত কিংবা সরকারি মালিকানাধীন হয় কিন্তু ক্লিনিক শুধুমাত্র ব্যক্তিগত মালিকানাধীন হয়ে থাকে।

যদিও হাসপাতাল এবং ক্লিনিক এর মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে তারপরও এই দুটি প্রতিষ্ঠানই আমাদের জন্য অনেক উপকারী।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial