কাঠঠোকরা পাখির কাঠ ঠোকরানো

কাঠঠোকরা পাখি (woodpeckers) কাঠ ঠোকরায় কেন?

অন্যান্য পাখির মতো কাঠঠোকরাদেরও (woodpeckers) অনন্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে। পাখিদের বিভিন্ন অনন্য আচরনের অবশ্যই একটি কাঠঠোকরা পাখির কাঠ ঠোকরানো। আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে কাঠঠোকরা কেন কাঠ ঠোকায়?

প্রথমত, আমার কাছে মনে হয়েছিল যে তারা একটি গাছে তাদের মুখকে এমন কঠোরভাবে আঘাত করছে যেন তারা আত্ম-বিয়োগ করার চেষ্টা করছে। তবে আমি ভুল ছিলাম।

কাঠঠোকরা পাখির কাঠ ঠোকরানোর ৬ কারণ

তাদের এই অনন্য আচরণের পিছনে রয়েছে যুক্তিযুক্ত কারণ। আসলে, আচরণটি তাদের জীবনযাত্রার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণও বটে।

কাঠঠোকরা কেন কাঠ ঠোকরায়
কাঠঠোকরা গাছে ঠোকরাচ্ছে

কাঠঠোকরা খাবার সন্ধানের জন্য কাঠ ঠোকায় :

এই গ্রহের অন্য যে কোনও প্রাণীর মতো, কাঠ ঠোকরার খাবার খোঁজার নিজস্ব একটি অনন্য উপায় রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ঈগল পাখি জলের পৃষ্ঠে আসে এবং মাছ ধরার জন্য তাদের পা পানিতে ডুবিয়ে দেয়।

তবে কাঠঠোকরার আলাদা কৌশল আছে। তারা যখন কোনও কাঠের মধ্যে লার্ভা, পিঁপড়া বা অন্য কোনও পোকামাকড় দেখতে পায়, তখন সেগুলি খাওয়ার জন্য কাঠ ঠোকরানো শুরু করে।

মজার বিষয় হল, একবার যখন তারা গাছের ছাল ভেদ করে ফেলে, তখন তারা কীটপতঙ্গগুলি ধরার জন্য আশ্চর্যজনক দীর্ঘ জিভ ব্যবহার করে।

woodpeckers ঠোকরানোর মাধ্যমে যোগাযোগ করে :

কাঠ ঠোকরা

অন্যান্য অনেক পাখির মতো কাঠঠোকরা গলার স্বর (Vocal) দিয়ে যোগাযোগ করতে পারেনা, গান গাইতেও পারেনা। কাঠ ঠোকরানোর মাধ্যমে তারা বিভিন্ন শব্দ তৈরি করে। মজার বিষয় হল, এই শব্দটি তাদের সম্ভাব্য শিকারী এবং প্রতিদ্বন্দ্বীদের ভয় দেখাতে সহায়তা করে। এছাড়াও, এই শব্দটি তাদের সাথীদের আকর্ষণ করতে সহায়তা করে।

বাসা তৈরির জন্য কাঠ ঠোকরায় :

বেশিরভাগ পাখি তাদের ভবিষ্যতের বাড়ির কাঠামো তৈরি করার জন্য ডানা এবং ঘাস সংগ্রহ করে তবে কাঠঠোকরা নয়। অন্য কথায়, কাঠঠোকরা বাসা তৈরির জন্য তাদের খোদাইয়ের দক্ষতার উপর নির্ভর করে। কাঠে ঠোঁট মেরে, তারা তাদের ভবিষ্যতের বাসা গঠনের জন্য গাছে ছিদ্র তৈরি করে।

মজার বিষয় হলো যদি কোনো কাঠঠোকরা কোন গাছে একাধিক ছোট গর্ত তৈরি করে, তার অর্থ তারা সেখানে শুধুমাত্র খাবারের জন্য ঠুকরিয়েছে। তবে, যদি দেখেন কোনও বড় গর্ত করার চেষ্টা করছে তবে এটি তাদের বাসা বাঁধার প্রচেষ্টার ইঙ্গিত।

কাঠ ঠোকরা গর্ত করে কারণ তারা পারে :

কাঠঠোকরা পাখির মতো আর কোন পাখি নেই যারা কাঠ ঠোকরা পাখির মতো পিক (peek) করতে সক্ষম। বেশিরভাগ পাখির চেয়ে কাঠঠোকরার শক্ত ঘাড় এবং চঞ্চু থাকে, যা তাদের নিজের ক্ষতি না করেই ক্রমাগত কাঠ ঠোকরানো রাখতে সক্ষম করে।

তারা দিনে ১০,০০০ বার ঠোকরাতে সক্ষম। তাদের শক্ত ঘাড়ে এক ধরনের প্রাকৃতিক ঝাকুনি শোষণকারী থাকে যা তাদের কম্পনে ভারসাম্য বজায় রাখতে সহায়তা করে।

উডপেকাররা তাদের অঞ্চলকে বিঁধিয়ে চিহ্নিত করে।

প্রতিটি প্রাণী এমনকি মানুষও নিজ নিজ জায়গা চিহ্নিত করে রাখতে পছন্দ করি। আমরা মানষেরা সাধারণত বেড়া দিয়ে আমাদের সম্পত্তি চিহ্নিত করি। কুকুর তাদের জায়গায় চিহ্নিতকরণের জন্য অন্য কুকুরকে দেখিয়ে গোল করে প্রস্রাব করে।

একইভাবে কাঠ ঠোকরাদেরও নিজ এরিয়া চিহ্নিতকরনের জন্য নিজস্ব পদ্ধতি রয়েছে। কাঠঠোকরা গাছ/কাঠের উপর জোরে জোরে আঘাত করে অন্য পাখিদের জানায় যে তারা সেই অঞ্চলে উপস্থিত রয়েছে।

আবাসিক এবং শিল্প কাঠামোর ক্ষতি করে নিজেদের বাসস্থান সুনিশ্চিত করা :

এই সুদর্শন পাখিগুলি কাঠের খুঁটি, ফলের গাছ সহ আরও অনেক জায়গায় কাঠের যে কোনও কাঠামোতে কুৎসিত ক্ষতির কারণ হতে পারে।

কাঠঠোকরার বাসা

 

যদিও কাঠঠোকরা প্রকৃতি বা কাঠামোর ক্ষতি করার জন্য কাঠকে ফুটো করে না, বরং তারা প্রতিকূল পরিবেশে বেঁচে থাকার কৌশল হিসাবে গাছে আঘাত করার বৈশিষ্ট্য ব্যবহার করে। আমরা সাধারণত গাছ বড় হলে একটা সময় কেটে ফেলি, যা পাখিদের বাসস্থান এবং খাদ্য সংকটের মূল কারণ। কিন্তু কোন গাছে কয়েকটি গর্ত থাকলে তার ভ্যালু কমে যায় এবং অনেক সময় বিক্রি হয় না।

অর্থাৎ, তারা ইচ্ছাকৃতভাবে কাঠ নষ্ট করে না, তারা কেবল তাদের নিজেদের মঙ্গল নিশ্চিত করার জন্য এটি করে।

শেষকথা :

সাধারণত, তাদের ধ্বংসাত্মক আচরণ সত্ত্বেও, কাঠঠোকরাকে প্রকৃতির এক অনন্য অঙ্গ হিসাবে দেখা হয়। আমার মতে, তাদের কাঠ ঠোকরানো শব্দটি অনেকের কাছেই প্রাণবন্ত এবং উপভোগ্যও বটে। যদিও আমি পাখির কিচিরমিচির শব্দে জেগে উঠতেই বেশি পছন্দ করি।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial