রিফারবিশড ফোন কি ? কিভাবে তৈরি হয়

রিফারবিশড নামের সঙ্গে অনেকেই আজ আমরা পরিচিত । কিন্তু অনেকের মনেই জানার আগ্রহ রয়েছে, রিফারবিশড ফোন আসলে কি ? এত কম দামে কিভাবে এই ফোন পাওয়া যায় ?

পুনর্নির্মাণ, রিফারবিশড ফোন, রিফারবিশড ফোন কিভাবে তৈরি হয়, Refurbished Phone, Refurbrished
রিফারবিশড ফোন


বিভিন্ন অনলাইনে শপিং করতে গেলে মাঝে মাঝেই আমাদের চোখে কম মূল্যে বিভিন্ন ব্রান্ড ফোন চোখে পড়ে, সাথে লেখা থাকে রিফারিবিশড (refurbished = পুনর্নির্মাণ)।  আমাদের মনে প্রশ্ন আসে, ব্রান্ড ফোন কিভাবে এত কম মূল্যে পাওয়া যায় ? নকল ফোন কি না, এমন শঙ্কাও মাঝে মাঝে মনে চলে আসে । কিন্তু আপনি জানেন কি, রিফারবিশড ফোন ১০০% অরিজিনাল ব্রান্ড ফোন ।


রিফারবিশড স্মার্টফোন কি?

ধরুন, আপনি একটি মোবাইল ফোন কিছুদিন আগে । আপনার স্মার্টফোনটির সাথে ১ বছরের সার্ভিস এবং রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি পেয়েছেন । কিছুদিন ব্যবহার করার পরে সেই ফোনে কিছু একটা সমস্যা দেখা দিল । স্মার্টফোনটিকে কাস্টমার কেয়ার এ নিয়ে গেলেন, এবং স্মার্টফোনটি ঠিক না করে আপনি রিপ্লেসমেন্ট অর্থাৎ বদল করে নিলেন । কিছু ব্রান্ড (যেমন- আইফোন) পুরাতন ফোনের পরিবর্তে নতুন ফোন এক্সচেঞ্জ অফার করে ।প্রশ্ন হলো, আপনি যে নষ্ট বা পুরাতন ফোনটি তাদের দিয়েছেন সেটাকে তারা কি করবে ?
তারা ফোনটি নিয়ে যে কাজটি করতে পারে সেটা হলো আপনার ফোনে যেসকল সমস্যা বা ক্ষতি ছিলো সেটা রিপেয়ার করে আবার সেল করতে পারে । অর্থাৎ এই ফোনগুলো হচ্ছে ইউজড স্মার্টফোন যেগুলোর প্রবলেম বা দূর্বল পার্টস, ‍স্ক্রিন স্পট ঠিক করে আবার সেল করা হচ্ছে । কিন্তু আপনি জেনে শুনে তো পুরাতন ফোন কিনতে চাইবেন না, এই কারনে এসব স্মার্টফোনের দাম একটি নতুন স্মার্টফোনের থেকে অনেক কম হয় । 
কিন্তু তাই বলে ফোনটি ক্লোন বা নকল ফোন হয়ে যাচ্ছে না, তারা শুধু ব্যবহৃত অরিজিনাল ফোনটিকেই পুনরায় বিক্রি করছে । আর এই ফোন গুলিকেই রিফারবিশড স্মার্টফোন বলা হয় । কম দামে ব্রান্ড ফোন কিনতে চাইলে পুরাতন ফোনের চেয়ে রেফারবিশড ফোন অনেক বেশি টেকসই ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial