বিপদ সংকেতে লাল রঙের চিহ্ন ও আলো ব্যবহার করা হয় কেন

বিপদ সংকেতে লাল রঙের চিহ্ন ও আলো ব্যবহার করা হয় কেন?

বিপদ সংকেতে লাল রঙের চিহ্ন ও আলো ব্যবহার করা হয় কেন? বিয়ার গ্রিলসের ম্যান ভার্সাস ওয়াইল্ডে লাল চিহ্ন দেখিয়ে সাহায্য চাওয়া কিংবা সিনেমায় লাল কাপড় উড়িয়ে ট্রেন থামানোর দৃশ্য আমাদের সকলের অতি পরিচিত। এই দুই দৃশ্যের মাঝে একমাত্র মিল হলো দূরে অবস্থান করা কাউকে জরুরী প্রয়োজনের সংকেত দেওয়া। কিন্তু প্রশ্ন হলো  সবসময় বিপদ সংকেত হিসেবে লাল আলা বা রঙ ব্যবহার করা হয় কেন?

বিপদ সংকেত হিসেবে লাল আলো ব্যবহৃত হয় কেন?

বিপদ সংকেতে লাল রঙ

আমাদের এই প্রশ্নের উত্তর আছে পদার্থ বিজ্ঞানের কাছে। আমাদের আকাশ কেন নীল কিংবা  সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের সময় আকাশ লাল দেখানো সব কিছুর ব্যাখ্যাই রয়েছে পদার্থ বিজ্ঞানে।

দৃশ্যমান আলোর ৭টি রং। সংক্ষেপে আমরা একে ‘বেনীআসহকলা’ বলে থাকি। রঙ ৭টি হলো ;

  1. বেগুনী
  2. নীল
  3. আসমানি
  4. সবুজ
  5. হলুদ
  6. কমলা এবং
  7. লাল রঙ

এই তালিকার প্রথম রঙ বেগুনি এবং সর্বশেষ রঙ লাল। লাল এবং বেগুনী রঙের মধ্যে পরস্পর ভিন্ন ধর্ম রয়েছে। লাল আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বেশি এবং বিচ্ছুরণ কম। অন্যদিকে বেগুনী রঙের আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য কম, তাই বিচ্ছুরণ বেশি।

সহজভাবে তরঙ্গ দৈর্ঘ্য এবং বিচ্ছুরনের সম্পর্ক বুঝতে আমরা টর্চ লাইটের কথা চিন্তা করতে পারি। যেসব টর্চ লাইটের আলো অনেকদূর যায়, সেই টর্চের আলো চারদিকে বেশি ছড়ায়না। অন্যদিকে যেসব লাইটের আলো ছড়িয়ে পড়ে, সেগুলো দূরে পৌছায়না, তাই খুব বেশি দূরের বস্তুও দেখা যায়না।

লক্ষ্য করলে দেখবেন বড় বড় বৈদ্যুতিক এবং বিশেষ করে মোবাইল টাওয়ারগুলোর উপরে লাল বাতি জ্বলে। কিংবা ছোটবেলায় যদি টার্গেট লাইট নিয়ে খেলে থাকেন, তাহলেও দেখতে পাবেন লাইটির রঙ লাল ছিলো যেটির আলো প্রায় ১কি.মি পর্যন্ত যেতে পারতো। কিন্তু কতটুকু বিস্তৃত হতো!! এমনকি বন্ধুর চোখে ধরলেও মুখ দেখা যেতো না।

নিশ্চয়ই কিছুটা বুঝতে পারছেন! আচ্ছা এবার একটু খুলে বলা যাক। বিপদ সংকেত দেওয়ার মতো আমাদের কমন কিছু বিপদের মাঝে ট্রেন লাইনে সমস্যা দেখা দেওয়া একটি।

ট্রেন থামানোর জন্য পর্যাপ্ত সময় প্রয়োজন। এখন যদি আপনি অগ্রগামী ট্রেনের জন্য বিপদজনক কোন কিছু লক্ষ্য করেন আর নীল রঙের কিছু দেখিয়ে সংকেত ধরে রাখেন, তবে এই রঙ দেখার আগে হয়তো ট্রেন আপনার উপরেই উঠে যাবে।

কিন্তু যদি আমরা লাল রঙ দেখাই, তবে ট্রেন চালক তা দূর থেকেই দেখতে পাবেন। কারণ লাল রঙের বিচ্যুতি কম, এটি অনেক দূর থেকেই দেখা যায়। তাছাড়া এর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বেশি হওয়ার কারণে আবহাওয়া প্রতিকূলে (কুয়াশা, বৃষ্টি, মেঘাচ্ছন্ন পরিবেশ প্রভৃতি) থাকলেও অনেক দূর থেকে টের পাওয়া যায়।

বিপদে আমাদের সাহোয্যের প্রয়োজনেই চিহ্ন দেখানো। বিপদ সংকেত যতদূর পর্যন্ত পৌছানো সম্ভব হবে, সাহায্য পাওয়ার সম্ভাবণা ততো বেশি এবং রেস্পন্স দ্রুত পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

হাতের কাছে লাল রঙ না থাকলে কি রঙ ব্যবহার করবো?

যদি এমন সমস্যায় পরেন যে কোন লাল রঙ নেই, তবে চেষ্টা করুন লাল রঙের কাছাকাছি তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের কোন রঙের কাপড় বা চিহ্ন ব্যবহার করার চেষ্টা করুন যেমন কমলা বা সবুজ।

এখন বুঝতে পারছেন তো! বিপদ সংকেত হিসেবে লাল আলো কিংবা রঙ ব্যবহার করা হয় কেন?

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial