প্লুটো কি

প্লুটো কি? প্লুটো গ্রহ নয় কেন?

২০০৬ সালে প্লুটো আর গ্রহ নয় বলে ঘোষণা করা হয়। প্লুটো কি? তখন কি অবস্থায় ছিল, এখন কি অবস্থায় আছে কিংবা প্লুটোকে গ্রহ তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার পিছনে কি কারণ ছিল তা নিয়ে আমাদের অনেকেরই জিজ্ঞাসা রয়েছে। চলুন কী কেন কীভাবে’র সাথে আপনার মনের ক্ষুদা মিটিয়ে আসি! 

প্লুটো কি?

প্লুটো গ্রহ
ছবি সূত্র: নাসা


প্লুটো একটি বামন গ্রহ। একটি বামন গ্রহ ঘুরে বেড়ায়, অথবা কক্ষপথে, সূর্য অন্য গ্রহের মত। কিন্তু এটা অনেক ছোট।

Clyde Tombaugh 1930 সালে প্লুটো আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন জ্যোতির্বিজ্ঞানী। একজন জ্যোতির্বিজ্ঞানী একজন বিজ্ঞানী যিনি মহাকাশে নক্ষত্র এবং অন্যান্য বস্তু অধ্যয়ন করেন। ভেনেটিয়া বার্নি একই বছর প্লুটোর নাম রাখেন। তিনি ইংল্যান্ডের ১১ বছর বয়সী মেয়ে ছিলেন। 

প্লুটো খুব বড় নয়,  এমনকি পৃথিবীর চাঁদের চেয়েও ছোট। এটি প্রশস্ততার দিক থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাত্র অর্ধেক। প্লুটোতে একদিন পৃথিবীর প্রায় সাড়ে ৬ দিনের সমান। এই বামন গ্রহ প্লুটো সূর্যের চারপাশে একবার ঘুরতে ২৪৮ বছর সময় নেয়। অর্থাৎ, আপনি যদি প্লুটোতে বসবাস করতেন, তাহলে আপনার প্রথম জন্মদিন উদযাপন করতে আপনাকে পৃথিবীর ২৪৮ বছর অপেক্ষা করতে হতো।  

প্লুটো সূর্য থেকে পৃথিবীর চেয়ে প্রায় ৪০ গুণ দূরে অবস্থিত। প্লুটো মহাকাশের যে এলাকায় রয়েছে তাকে বলা হয় কুইপার (KY-per) বেল্ট। এরকম আরো হাজার হাজার ছোট, আইসিকিন্তু প্লুটোর চেয়ে ছোট বস্তু কুইপার বেল্টে রয়েছে। 

এই বামন গ্রহতে পাঁচটি চাঁদ রয়েছে, যার মাঝে বৃহত্তম চাঁদের নাম Charon (KAIR-ən)। চারনের আকার প্লুটোর আকারের প্রায় অর্ধেক। প্লুটোর আরও চারটি চাঁদের নাম কার্বেরোস, স্টাইক্স, নিক্স এবং হাইড্রা। 

প্লুটো কেমন? 

  • প্লুটো খুব খুব ঠান্ডা: এটি অ্যান্টার্কটিকার চেয়ে অনেক বেশি ঠান্ডা। এটি এত বেশি ঠান্ডা যে, পৃথিবীর বায়ু সেখানে এক ধরনের বরফে জমে যাবে। 
  • প্লুটোর মাধ্যাকর্ষণ শক্তি পৃথিবীর চেয়ে কম: এর মানে হল যে, একজন ব্যক্তির ওজন পৃথিবীর তুলনায় প্লুটোতে অনেক কম অনুভূত হবে। 

নাসা আজ কিভাবে প্লুটো অন্বেষণ করছে?

খুবই শক্তিশালী হাবল টেলিস্কোপ দিয়ে তোলা ছবি থেকে নাসা প্লুটো সম্পর্কে জানতে পারে। হাবল স্পেস টেলিস্কোপের ছবি বিজ্ঞানীদের চারটি ছোট চাঁদ খুঁজে পেতে সাহায্য করেছে। কিন্তু প্লুটো এতটাই দূরে যে, এমনকি হাবলের তোলা ছবিও অস্পষ্ট দেখায়। তাই, নাসা প্লুটোর কাছাকাছি উড়ানোর জন্য একটি মহাকাশযান পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। মহাকাশযানের নাম নিউ হরাইজনস। এটি শুধুমাত্র একটি পিয়ানোর আকারের সমান। 

নিউ হরাইজনস
ছবি সূত্র: নাসা

২০০৬ সালের জানুয়ারিতে উৎক্ষেপণ করা হয়। ২০১৫ সালের গ্রীষ্মে, প্লুটো এবং এর চাঁদে নিউ হরাইজন উড়ে যায়। পৃথিবী থেকে এত দূরে যেতে প্রায় মহাকাশযানটির ১০ বছর লেগেছিল! 

নিউ হরিজনসের সাথে ক্যামেরা ছিল যা প্লুটোর ছবি তুলেছে। মহাকাশযানটি প্লুটোতে উড়ার সময় বোর্ডে থাকা বৈজ্ঞানিক টুলসগুলো তথ্য সংগ্রহ করে। ছবি এবং তথ্য বিজ্ঞানীদের বামন গ্রহ সম্পর্কে আরো জানতে সাহায্য করছে। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে প্লুটোর দুই-তৃতীয়াংশ (২/৩) শিলা এবং এক-তৃতীয়াংশ (১/৩) বরফ। 

বিজ্ঞানীরা প্লুটোর ছোট চাঁদ সম্পর্কেও অনেক তথ্য জানতে পেরেছেন। তারা জানতে পেরেছিলেন যে, প্লুটোর চাঁদ অন্যান্য চাঁদের চেয়ে দ্রুত ঘুরছে। প্লুটোর হাইড্রা চাঁদ প্রতিবার প্লুটোকে প্রদক্ষিণ করার জন্য প্রায় 89 বার ঘোরে! আর চাঁদগুলো স্পিনিং টপ এর মতো করে ঘুরছে। যেখানে অন্যান্য গ্রহের চাঁদ একদিকে ফেস রেখে ঘুরতে থাকে, সেখানে প্লুটোর চাঁদ স্পিনিং টপ এর মতো করে ঘুরছে। 


নিউ হরাইজনস এখন প্লুটো সম্পর্কে তথ্য নেওয়া শেষ করে কুইপার বেল্ট নিয়ে আরো অধ্যয়ন করছে।

প্লুটো গ্রহ নয় কেন?

ভাল খবর হল প্লুটো এখনও আমাদের সৌরজগতে আছে, সূর্যের চারদিকে ঘুরছে। এটি মোটেও পরিবর্তিত হয়নি কিন্তু আমরা প্লুটোকে আলাদাভাবে শ্রেণিবদ্ধ করেছি। ২০০৬ সালে বিজ্ঞানীরা যারা মহাকাশের গ্রহ, নক্ষত্র এবং অন্যান্য বস্তু অধ্যয়ন করেন তারা গ্রহের সংজ্ঞা পরিমার্জিত করেন এবং একটি নতুন বিভাগ, বামন গ্রহ তৈরি করেন। বিজ্ঞানীদের এই দলটি হলো আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান ইউনিয়ন। প্লুটো নতুন সংজ্ঞার সাথে খাপ খায়নি, তাই এটিকে নতুন শ্রেণিবিন্যাসে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। 

এটাকে এভাবে বলা যায়, পেশাদার কোনো ফুটবল খেলোয়াড়র দল বদল করলেন। তিনি এখনও একই খেলা খেলছেন, কিন্তু শুধু একটি ভিন্ন গ্রুপ বা দলে স্থানান্তরিত হয়েছে। প্লুটো এখনও একই রয়েছে কিন্তু মহাকাশে বস্তুর একটি ভিন্ন শ্রেণীতে রাখা হয়েছে। 

প্লুটো আর গ্রহ নয় বা তার শ্রেণীবিভাগ পরিবর্তন করার জন্য বিজ্ঞানীদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার অন্যতম কারণ হলো, প্লুটোর বাইরে অন্যান্য ক্ষুদ্র celestial bodies (মহাকাশে গ্রহ এবং বস্তুর জন্য আরেকটি শব্দ) আবিষ্কৃত হওয়া। দেখা যাচ্ছে প্লুটো আমাদের সৌরজগতের বৃহত্তর অন্যান্য গ্রহের তুলনায় এই সম্প্রতি আবিষ্কৃত বস্তুর মতো। এখানে ৫টি বামন গ্রহ পাওয়া গেছে। 

যেহেতু বিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলীরা আরো অত্যাধুনিক টেলিস্কোপ এবং মহাকাশযান ডিজাইন করতে সক্ষম, তাই আমরা আমাদের সৌরজগতের এবং এর বাইরে সব বস্তু সম্পর্কে আরো জানতে পারবো ইন-শা-আল্লাহ।

প্লুটো সম্পর্কে সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞেসিত প্রশ্ন এবং উত্তর 

প্র: সূর্য থেকে প্লুটো কত কিলোমিটার দূরে? 

উ: প্লুটো সূর্য থেকে ৫.৯ বিলিয়ন কিলোমিটারের বেশি দূরে অবস্থিত।

প্র: সূর্য থেকে প্লুটো কত মাইল দূরে? 

উ: প্লুটো সূর্য থেকে ৩.৭ বিলিয়ন মাইল দূরে। 

প্র: কিভাবে প্লুটো সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে, অথবা ঘুরে বেড়ায়? 

উ: অধিকাংশ গ্রহ সূর্যকে একটি কাছাকাছি বৃত্তে প্রদক্ষিণ করে। সূর্য বৃত্তের কেন্দ্রে। কিন্তু প্লুটো একটি বৃত্তে প্রদক্ষিণ করে না। প্লুটোর কক্ষপথটি ডিম্বাকৃতির মতো। আর সূর্য কেন্দ্রে নেই। প্লুটোর কক্ষপথও কাত হয়ে আছে। 

প্র: প্লুটো কত বড়?

উ: প্লুটো মাত্র ২,৩০০ কিলোমিটার প্রশস্ত। তার মানে এটি ১,৪০০ মাইল প্রশস্ত।

প্র: ডিগ্রী সেলসিয়াসে প্লুটো কত ঠান্ডা? 

উ: প্লুটো শূন্য সেলসিয়াসের নিচে প্রায় ২৩০ ডিগ্রী, অর্থাৎ -২৩০ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

প্র: প্লুটোর ফারেনহাইট ডিগ্রীতে কত ঠান্ডা? 

উ: প্লুটো শূন্য ফারেনহাইটের নিচে ৩৭৫ থেকে ৪০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট। 

প্র: পৃথিবীতে আমার ওজন ৬০ কেজি। আমি প্লুটোতে কতটা ওজন করব? 

উ: প্লুটোতে আপনার ওজন হবে প্রায় ৪ কেজি।

তথ্যসূত্র: নাসা ও চিলড্রেন মিউজিয়াম

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial