কনডেম সেল কি

কনডেম সেল কী? অন্য সেলের সাথে কনডেম সেলের পার্থক্য কী

প্রায়শই আমরা পত্রিকায় দেখি ‘এক্স আসামীকে’ কনডেম সেল (Condemned Cell) এ রাখা হয়েছে। কিন্তু এই কনডেম সেল (Condemned Cell) কি জিনিস, কেমন কক্ষ, কারাগারের অন্য কক্ষের সাথে পার্থক্য কী, এসব নিয়ে আমাদের মনে অনেক প্রশ্নই রয়েছে। চলুন কনডেম সেল (Condemned Cell) নিয়ে কিছু প্রশ্নের উত্তর জেনে নিই।
কনডেম সেল কী?, অন্য সেলের সাথে কনডেম সেলের পার্থক্য কী, Condemned Cell

কনডেম সেল কী? (what is Condemned Cell?)

পত্রিকার সংবাদগুলো দেখলে দেখবেন কনডেম সেলে রাখা সকল আসামী মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত। হ্যা, মৃত্যূদন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের কারাগারের যে বিশেষ ধরণের নির্জন কক্ষে রাখা হয়, তাকে কনডেম সেল বলা হয়। কনডেম সেল আয়তন, বৈশিষ্ট্য এবং সুযোগ-সুবিধার দিক থেকে কারাগারের অন্য সাধারণ কক্ষ থেকে অনেক আলাদা হয়ে থাকে। তবে বাংলাদেশ জেলকোড বা কারাবিধিতে কোথাও মৃত্যু দন্ডপ্রাপ্ত আসামীকে কনডেম সেল এ রাখার লিখিত আইন নেই। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের কারাগারে ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা হয়, সার্বক্ষণিক পাহারার ব্যবস্থাও থাকে। তাই সতর্কতার জন্যই অলিখিত এই রেওয়াজ কারাগারে মেনে চলা হয়। তবে অনেক দেশেই ফাঁসির আসামীদের কনডেম সেলে রাখার বিষয়ে লিখিত আইন রয়েছে।

কনডেম সেল এবং কারাগারের অন্য কক্ষের মাঝে পার্থক্য:

১) কনডেম সেল সাধারণত ৬ফুট বাই ১০ফুট হয়ে থাকে, তবে কারাগারভেদে কিছুটা বড় হতে পারে। রুমের ভিতরেই টয়লেট, গোসলে এবং খাবার ব্যবস্থা থাকে।

>> সাধারণ সেল বেশ বড় হয়ে থাকে। সেল এর মাঝে কোন টয়লেট এবং গোসলের জন্য আলাদা ব্যবস্থা থাকে না। কয়েদীদের খাবারের জন্য ডাইনিং ব্যবস্থা রয়েছে।

২) কনডেম সেলের বন্দীদের সাধারণত রুমের মধ্যেই আটকে রাখা হতো। রুমের আলো বাতাসের জন্য খুব উঁচুতে একটি ছোট জানালা থাকে। তবে পূর্বে দেখা যেত রুমের মাঝে আটকে থাকায় আসামী অসুস্থ হয়ে যেত। তাই এখন দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় আসামীকে বের করে খোলা জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়, তবে কড়া নজরবন্দি অবস্থায়।

>> কারাগারের সাধারণ কক্ষের আসামীরা বাইরে ঘোরাঘুরি করার জন্য সময় অনেক বেশি পেয়ে থাকেন।

কনডেম সেল কী?, অন্য সেলের সাথে কনডেম সেলের পার্থক্য কী, Condemned Cell
ছবি- কনডেম সেলের ভিতরের চিত্র

৩) কনডেম সেলে ১জন বা ৩জন আসামীকে রাখা হয়। মজার ব্যাপার হলো কখনো ২জন আসামীকে রাখা হয় না। ধারণা করা হয়, ২জন একসাথে থাকলে পালানোর পরিকল্পনা করতে পারে, কিন্তু ৩ জন থাকলে পরিকল্পনা গোপন রাখতে পারবেনা।

>> সাধারণ কক্ষ যেযেতু বড় হয়, তাই এক রুমে একসাথে অনেক কয়েদীকে রাখা হয়।

৪) কনডেম সেলের (Condemned Cell) আসামীরা কারাগারের শিক্ষা এবং কর্মসংস্থান কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন না।

>> সাধারণ কয়েদীদের শিক্ষা এবং কর্মসংস্থান কার্যক্রমে সুযোগ দেওয়া হয়।

৫) কনডেম সেলে থাকা মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী মাসে একবার এবং একসাথে সর্বোচ্চ ৫ জন দর্শনার্থীদের সাথে দেখা করতে পারেন। বিশেষ তবে বিবেচনায় ১৫ দিনেও দেখা করার সুযোগ দেওয়া হয়।

>> সাধারণ আসামীদের সাথে দর্শনার্থীদের দেখা করার বিষয়ে শিথিলতা দেখানো হয়। 

 বাংলাদেশে বর্তমানে ১৩টি কেন্দ্রীয় কারাগার এবং ৫৫টি জেলা কারাগার রয়েছে। ৬৮টি কারাগারের সবকটিতেই কনডেম সেল (Condemned Cell) ব্যবস্থা রয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Social Share Buttons and Icons powered by Ultimatelysocial